brandbazaar globaire air conditioner
ব্রেকিং নিউজঃ

পর্তুগালের রামোস কাতার বিশ্বকাপে প্রথম হ্যাটট্রিকম্যান

পর্তুগালের রামোস কাতার বিশ্বকাপে প্রথম হ্যাটট্রিকম্যান

ম্যাচ শুরুর আগে থেকেই রোনালদোকে মাঠে না নামানোর গুঞ্জন চলছিল। যার সত্যতা দেখা গেল ম্যাচের শুরুর একাদশ প্রকাশের পরে। এদিন দোহার লুসাইল স্টেডিয়ামে সুইজারল্যান্ডের বিপক্ষে শেষ ষোলোর ম্যাচে পর্তুগিজ কোচ ফার্নান্দো সান্তোস পর্তুগালের ইতিহাসে সর্বোচ্চ গোলদাতাকে একাদশের বাইরে রেখে ২১ বছর বয়সী তরুণ স্ট্রাইকার গঞ্জালো রামোসকে মাঠে নামান।

ফলে বিশ্বকাপের মঞ্চে প্রথমবার দেশের হয়ে শুরুর একাদশে জায়গা পেলেন বেনফিকার এই স্ট্রাইকার। আর সুযোগ পেয়েই বড় মঞ্চে গুরুর যে আস্থা তার প্রতিদান দিলেন দুহাত ভরে। সময়ের অন্যতম সেরা ফরোয়ার্ড রোনালদোকে টেক্কা দিয়ে এই তরুণ শুধু গোলই করেনি, করে ফেলেছেন হ্যাটট্রিক!

অনিশ্চয়তার এই খেলায় বেনফিকার এই স্ট্রাইকারের হ্যাটট্রিকে কাতার বিশ্বকাপেও প্রথমবার হ্যাটট্রিক দেখল বিশ্ববাসী। মঙ্গলবার (৬ ডিসেম্বর) লুসাইল আইকনিক স্টেডিয়ামে কোয়ার্টার ফাইনালে ওঠার জন্য গুরুত্বপূর্ণ দিনে ৭৩ মিনিট পর্যন্ত তাকে মাঠে রেখেছিলেন কোচ সান্তোস। এর মধ্যে ৬৭ মিনিটের মধ্যেই হ্যাটট্রিকম্যান হিসেবে নিজের নাম লেখান।

 

এদিন ম্যাচের ১৭তম মিনিটেই গোলের খাতা খুলেন রামোস। সুইসদের ডি-বক্সের ভিতরে ফেলিক্সের থ্রো থেকে বল পান এই তরুণ। সেখান থেকে জোরালো এক শটে গোলপোষ্টের বাম দিকের কর্ণারে বল জালে জড়ান এই খেলোয়াড়। ফলে বিশ্বকাপের মঞ্চে অভিষেক গোলের দেখা পান তিনি।

তবুও গোলের ক্ষুধা যেন লেগেই ছিল তার মনে। যার কারণে প্রথমার্ধের বিরতি থেকে ফিরে ম্যাচের ৫১ তম আবারও গোলের দেখা পান রামোস। আর ৬৭তম মিনিটে নিজের হ্যাটট্রিক পূরণ করেন এই তারকা।

এই ম্যাচে রামোসের তিন গোলের সঙ্গে পেপে, লেয়ো ও গুয়েরেরোর একটি করে গোলে ৬-১ গোলের বড় ব্যবধানে জয় তুলে নেয় পর্তুগাল। যার সুবাদে বিশ্বকাপের স্বপ্নে এক পা সামনে এগিয়ে গেল ২০১৬ সালের ইউরো চ্যাম্পিয়নরা।

 

এদিন কাতার বিশ্বকাপের মঞ্চে প্রথম হ্যাটট্রিকম্যান রামোস রেকর্ড বুকে নিজের নাম জুড়ে দেন। যেখানে ২০ বছর আগের জাপান-কোরিয়া বিশ্বকাপে জার্মানির মিরোস্লাভ ক্লোসার পর একমাত্র ফুটবলার হিসেবে নিজের পূর্ণ অভিষেক হ্যাটট্রিকে রাঙালেন এই পর্তুগিজ।

সুইজারল্যান্ডের বিপক্ষে হ্যাটট্রিক করে স্বদেশি ইউসেবিও, রোনালদোর পর তৃতীয় পর্তুগিজ হিসেবে বিশ্বকাপে ‘হ্যাটট্রিক ম্যান’ উপাধি পেলেন এই তরুণ। এর আগে সেই ১৯৬৬ বিশ্বকাপে ইউসেবিও প্রথমবার পর্তুগালের হয়ে উত্তর কোরিয়ার বিপক্ষে এই কৃতিত্ব গড়েন। এরপর গত রাশিয়া বিশ্বকাপে হ্যাটট্রিক করে তার পাশে যান সিআর৭।

 

Related posts