brandbazaar globaire air conditioner

সুনামগঞ্জের ক্যান্সার আক্রান্ত শিক্ষার্থী  শাহিন আলম বাঁচতে চায়

সুনামগঞ্জের ক্যান্সার আক্রান্ত শিক্ষার্থী  শাহিন আলম বাঁচতে চায়
মোঃ হুমায়ূন কবীরফরীদি, জগন্নাথপুর (সুনামগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ
দীর্ঘ দিন ধরে  মরণব্যাধি ব্লাড ক্যান্সারে আক্রান্ত  জামালগঞ্জ মডেল সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়ের মেধাবী শিক্ষার্থী  শাহিন আলম (১৭) বাঁচতে চায়। জানাযায়, সুনামগঞ্জ জেলাধীন  জামালগঞ্জ সরকারী মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্র শাহীন আলমের বাবা সাদির মিয়া একজন শ্রমিক। ২ ভাই ও ৩ বোনের মধ্যে সেই পরিবারের বড় সন্তান। জামালগঞ্জ উপজেলা সদরের নয়াহালট গ্রামের বাসিন্দা তাঁর  পিতার নিজের কোন জমি-জমা নেই। শ্রমিক পরিবারের সন্তান শাহিন আলম এক জন মেধাবী ছাত্র ছিল। কিন্তু তাঁর শরীরে বাসা বেঁধেছে মরণব্যাধি ব্লাড ক্যান্সার। এ যাবৎ দেশের বিভিন্ন  হাসপাতালে দীর্ঘ ১১ মাস চিকিৎসার পর গত ১৮ই জুন ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের চিকিৎসকরা জানিয়েছেন তার ব্লাড ক্যান্সার হয়েছে। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় ও ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের চিকিৎসকরা জানিয়েছেন শাহিন আলমের বয়স কম ও শুরুতেই রোগটি ধরা পড়ায় চিকিৎসা করে শংকামুক্ত হওয়া সম্ভব। তবে ক্যান্সার প্রতিরোধী কেমোথেরাপি দিতে প্রয়োজন প্রায় ৭ লাখ টাকার। কিন্তু সেই সামর্থ নেই তার পরিবারের। গ্রামের প্রতিবেশী প্রবীণ ধর্মপ্রাণ মুরব্বী রফিকসহ গ্রামের লোকজন উদ্যোগ নিয়েছেন সম্ভাবনাময় মেধাবী কিশোরের অকালমৃত্যু রোধ করতে। এতে তাঁর সু চিকিৎসার জন্য প্রয়োজন প্রায় ৭ লাখ টাকা। তাই নয়াহালট গ্রামবাসী ও তাঁর স্বপ্নের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান জামালগঞ্জ সরকারি মডেল উচ্চ বিদ্যালয় ও সমাজের বিত্তশালীসহ সবার আর্থিক সহযোগিতা চাইছেন। শিক্ষার্থী শাহিন আলমের বাবা সাদির মিয়া বলেন, আমি গরিব মানুষ, কাজ করে সংসার ও ছেলে মেয়ের লেখাপড়ার খরচ চালাই। আমার ছেলের ক্যান্সার হয়েছে এটা শুনার পর থেকেই আমাদের পরিবারের সবার ঘুম হারাম হয়েছে। ডাক্তার বলছে ৭-৮ লাখ টাকা হলে তাকে ভাল করা যাবে। কিন্তু আমাদের লাখ টাকা দেয়ারই ক্ষমতা নেই। আমি সবার কাছে আমার ছেলের জন্য সাহায্য চাই।ব্লাড ক্যান্সারে আক্রান্ত জামালগঞ্জ সরকারি মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্র শাহিন আলম বলেন,‘আমি বাঁচতে চাই, সবার সাথে স্কুলে যেতে চাই। লেখাপড়া শেষ করে একটা চাকুরি করে মা-বাবার অভাবের সংসারে সবার মূখে ফুটাতে চাই। আমার কপাল খারাপ, গরিব ঘরের ছেলে আমি। কিন্তু খুব বড় একটা অসুখ হয়ে গেল আমার। আমার চিকিৎসায় সবার সহযোগিতা চাই। সবার দোয়া চাই।নয়া হালট গ্রামের বাসিন্দা খালিক মিয়া বলেন, শাহিন একজন খুব ভাল ছাত্র ও ভদ্র ছেলে। কিন্তু তার বড় অসুখ হয়েছে। এই অসুখের চিকিৎসা করা কোনভাবেই তার পরিবারের পক্ষে সম্ভব না। কারণ তার বাবা কাজ করে সংসার চালায়। সমাজের সবারই সাধ্যমত তাকে সহযোগিতা করলে চিকিৎসা করানো সম্ভব।জামালগঞ্জ সরকারি মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক লুৎফুর রহমান বলেন,শাহিন আলম ছেলেটা ভাল ছিল, লেখাপড়ায় তার বেশ মন ছিল। কিন্তু হঠাৎ করে কি যেন হয়ে গেল। তাকে বাঁচাতে সমাজের সকলের এগিয়ে আসা উচিত। সকলের আর্থিক সহযোগিতা পেলে সে চিকিৎসা করাতে পারবে। আমরা চাই তার চিকিৎসায় সবাই তাকে সহযোগিতা করুক।
শাহিন আলমকে সাহায্য পাঠানোর ঠিকানা ও যোগাযোগ: মোবাইল: ০১৭৬৫-৮৭৭১৩৫, ডাচ্ বাংলা মেবাইল ব্যাংকিং নং- ০১৭৬৫ ৮৭৭১৩৫৯ ও সাদির মিয়া, সঞ্চয়ী হিসাব নম্বর-৭৮৭৮০, পূবালী ব্যাংক লি. জামালগঞ্জ শাখা, সুনামগঞ্জ।

Related posts

Leave a Reply